ফসলের ব্যাপক ক্ষতি ভাঙ্গায় ভারী বর্ষনে

0
100

ভাঙ্গা প্রতিনিধিঃ ফরিদপুরের ভাঙ্গায় কয়েকদিনের বৈরী আবহাওয়া ও ভারী বর্ষনে বিভিন্ন শাক-সবজিসহ চলতি মৌসুমের বোনা ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ঝিঙে,করলা,বেগুন,শসা,পেপেসহ বিভিন্ন সবজির ভারী বর্ষনের ফলে ক্ষতি হয়েছে ব্যাপক অপর দিকে মৌসুমের পাটের বীজতলা ও বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ায় কৃষকরা দিশেহারা হয়ে পরেছেন।ইতিমধ্যে যে সব পাটের চারা ১০/১২ ইঞ্চি লম্বা হয়েছে সেসব অধিকাংশ জমিতে এখন হাটু পানি। সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায় পানিতে নিমজ্জিত অধিকাংশএলাকার ফসলহানীতে কৃষকরা দারুন হতাশ হয়ে পরেছেন। তারা আশংকা করছেন ভারী বর্ষন অব্যাহত থাকলে ক্ষতির পরিমান আরও বেড়ে যাবে। তাছাড়া চলতি মৌসুমের বেশ কিছু এলাকার বোরো ধান পানিতে টইটম্বুর।আধপাকা ধানও ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বলে এলাকার কুষকরা জানান। অনেক নিমজ্জিত জমিতে পাটের চারা পচে মরে যাচ্ছে। অসময়ে ভারী বর্ষনের ফলে বর্গাচাষী কিংবা দাদনের টাকা নিয়ে চাষাবাদ করা কৃষকরা এতে চরম বিড়ম্বনায় পরবে বলে তারা চিন্তিত হয়ে পরেছেন। উপজেলা অধিক ক্ষতিগ্রস্থ ঘারুয়া ইউনিয়নের সাউতিকান্দা গ্রামের কৃষক রাজিব হাওলাদার বলেন-ধার দেনা করে তিন বিঘা জমিতে পাটের আবাদ করেছিলাম। জমিতে এখন হাটু পানি। তাই চিন্তিত হয়ে পড়েছি।

অপরদিকে উপজেলার চৌকিঘাটা গ্রামের কৃষক আমির হোসেন, তুজারপুর গ্রামের ওদুদ মিয়াসহ এলাকার কৃষকরা পাটের বীজতলা ও বোরো ফসল তলিয়ে যাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে কৃষি নির্ভর পরিবারগুলো দারুন হতাশায় দিন কাটাচ্ছেন। এব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ ওয়াহিদুজ্জামানের সাথে কথা হলে তিনি বলেন চলতি মৌসুমে ১০ হাজার হেক্টর জমির মধ্যে ২৫ হেক্টর জমির পাট পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে এবং অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি ১৫০ হেক্টর আউশ ধানের মধ্যে ৩ হেক্টর জমির ধান বিনষ্ট হয়েছে। আমরা কৃষকদেরকে জমির আইল কেটে নালা তৈরী করার পরামর্শ দিয়েছি। আশা করি আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে ক্ষতির পরিমান কমে যাবে।

Comments

comments

SHARE