চিত্র নায়িকা অপুর বাচ্চার জন্মদাতা শাকিব খান।

1
259

১০ এপ্রিল ২০১৭, ২২:০৯
চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসকে বিয়ে করার কথা স্বীকার করলেন চিত্রনায়ক শাকিব খান। তাদের সন্তান হিসেবে স্বীকার করলেন ছেলে আব্রাহাম খান জয়কেও। তবে একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলে হাজির হয়ে সরাসরি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অপু বিয়ে আর সন্তানের কথা বলায় নাখোশ হয়েছেন তিনি। ক্ষুব্ধ নায়ক জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি সন্তানের দায়িত্ব নেবেন; অপুর নয়। লোভে পড়ে বিরোধী পক্ষের সঙ্গে চক্রান্ত করে অপু এমনটা করেছেন বলে দাবি তাঁর।

অপু বিশ্বাস যখন সরাসরি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শাকিবের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের কথা জানাচ্ছিলেন, তখন রাজধানীর একটি হোটেলে শরীরচর্চায় ব্যস্ত ছিলেন শাকিব খান। সেখান থেকে তিনি কথা বলেন প্রথম আলোর সঙ্গে। আজকের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে অপু তাঁকে অসম্মান করেছেন—মন্তব্য করে ক্ষুব্ধ শাকিব বলেন, ‘আমি বাচ্চাকে নিয়ে ভাবব। তবে অপুকে নিয়ে নয়। আর কোনো দিনই নয়। এর জন্য যদি সর্বোচ্চ শাস্তি পেতে হয়, সেই শাস্তি পেতেও আমি রাজি। আমি ট্র্যাপে পড়ে থাকতে রাজি নই। সারাজীবন আমি কতগুলো নায়িকাকে বঞ্চিত করেছি, শুধু তাঁর সঙ্গে কাজ করেছি। আর নয়…’

শাকিবের ভাষায়, ‘আমি বিয়েটা ভালোই রাখতে চেয়েছিলাম। অপুই শেষ করে দিলো। বড় কিছুর লোভেই সে এমনটা করেছে। ও যদি নিজেকে আমার স্ত্রী-ই দাবি করে থাকেন, আজকে কি স্ত্রীর মতো আচরণ করেছেন? আমাকে অসম্মান করা ছাড়া?’ তবে অপুর এই ঘোষণায় এক দিক থেকে ভালো হয়েছে বলে দাবি করে তিনি বলেন, ‘আজকের ঘটনায় ভালো হলো। আমি ওপেন হয়ে গেলাম। এখন থেকে সব নায়িকার সঙ্গে সিনেমা করব। আমার কোনো বাধা রইল না।’

বিয়ের প্রসঙ্গে জানতে ফোন করা হলে শাকিব খান বলেন, ‘তারকাদের জীবনে ভুলভ্রান্তি হয়। সেটা প্রসেনজিৎ, জিৎ, সাইফ আলী খান, আমির খান, টম ক্রুজের মতো নায়কদের ক্ষেত্রেও হয়েছে। এটা নিয়ে মাথা ঘামানোর দরকার নেই। পারসোনাল লাইফ তো থাকবেই।’ এত দিন কেন বিয়ের কথা জানাননি—এমন প্রশ্ন করা হলে প্রথমে তিনি বলেন, ‘অপুকে জিজ্ঞেস করুন, কী কারণে হয়নি। আমি অপুর সঙ্গে কথা বলব না, অপুকে নিয়েও কথা বলব না। তিনি আমার আব্রাহামের মা। সম্মানও হানি করতে চাই না। তবে এত দিন পর কেন তিনি এসব কথা সবাইকে জানাচ্ছেন, সেই প্রশ্নটা তাঁকেই করুন।’ এর সঙ্গে যোগ করেন, ‘শাকিবের ক্যারিয়ার এত ঈর্ষনীয় বিষয় যে অপু আমার সব বিরোধীদের সঙ্গে মিলে এমন করল। সারাজীবন তো আমাকে ট্র্যাপ করেই আসছে, আজকে আবারও করল। বলিউডে আমার সিনেমা রিলিজ হবে, আর কয়েক দিন পরই। আর তখন এমনটা করল…। বাংলায় প্রবাদই আছে, একজন উঠতে চাইলে আরেকজন ঠ্যাঙ ধরে নামায়।’

নতুন নায়িকা বুবলিকে নিয়েই অপু-শাকিবের সম্পর্কের অবনতি কি না, জানতে চাইলে শাকিব খান বলেন, ‘বুবলি নতুন নায়িকা। তাঁর সঙ্গে আমার ভালো জুটি হয়েছে। কিন্তু কেউ বলবে, বুবলির সঙ্গে কাজ করা যাবে না। তাহলে আমি বেকার বসে থাকব বাসায়? আমাকে কী এখন অপু বিশ্বাসকে নিয়ে ছবি করতে হবে? অনৈতিক দাবি তো আমি কোনো দিনই মানব না। আজকে যে অপু বিশ্বাসকে সবাই দেখছে, তাকে নিয়ে কী এখন সিনেমা করা যায়? এখন সে সিনেমা করার মতো নায়িকা?’ এর সঙ্গে যোগ করেন, ‘বুবলির জায়গায় অন্য কেউ থাকলেও একই হতো। তাঁকে (অপু) নতুন ছবিতে নিলাম না, এজন্য? নিব কোথা থেকে? তাঁর সেই শারীরিক অবস্থা আছে? আমি জীবনে বহু ট্র্যাপ হয়েছি। আর ট্র্যাপ হতে চাই না।’

শাকিব খান বলেন, ‘সে যদি আমাকে স্বামী মানত, তাহলে আমার অনুমতি ছাড়া কীভাবে যায় আমার বিরুদ্ধে কথা বলতে? দুই দিন আগেও ১১ লাখ টাকা পাঠিয়েছি।’ টাকা দিলেই স্ত্রীর মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হয় কি না—এমন প্রশ্নের জবাব তিনি বলেন, ‘স্ত্রীর মর্যাদা সেভাবেই হবে…। কেউ যদি বলে তুমি মিম, শখ, বিন্দু, মাহী, যখন যে স্টার হয়েছে, কারো সঙ্গে সিনেমা করতে পারবে না। শুধু আমার সঙ্গেই সিনেমা করবে। একসময় সে নতুন নায়িকা নিতে বলল। বুবলিকে নিলাম। তাঁর সঙ্গে সিনেমা করলাম, সুপারহিট হলো। এখন বলছে, তাঁর সঙ্গে সিনেমা করতে পারবে না। আমাকে নাও। তাঁর কী এখন সেই অবস্থান আছে?’

শাকিবের দাবি, স্বামী হিসেবে তিনি টাকা-পয়সা দিয়েছেন, খোঁজখবর নিচ্ছেন। তাঁর ভুল ছিল না। তাঁর দাবি, ‘দুদিন আগেই ১১ লাখ টাকা পাঠালাম, নতুন ফ্ল্যাটের জন্য। ২০ লাখ পাঠানোর কথা হয়েছে। এর মধ্যে আমার বিরোধীদের সঙ্গে মিলে অপু এমন করল।…মনে হয় সে নতুন ছবি সাইন করেছে। অন্য কারো সঙ্গে নতুন কিছু করেছে। সেজন্য এমন করছে।’ অপু ভালো চান না মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘শাকিবের মন্দ কেন চাইতে হবে? শাকিব আজকে বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করছে সারা বিশ্বে। দুদিন আগেও সব ঠিক ছিল। হঠাৎ করে ক্যারিয়ার ধ্বংস করে দিতে চাইছে কেন?’

অপুর এই কর্মকাণ্ডকে চক্রান্ত দাবি করে শাকিব খান বলেন, ‘এটা অবশ্যই চক্রান্ত। তবে চক্রান্ত কাজে দেয় না। আমির খান আমির খানই আছেন। তাঁর ক্যারিয়ার নষ্ট হয়েছে? প্রসেনজিৎ, জিৎ তাদের ক্যারিয়ার নষ্ট হয়েছে? যারা আমাকে ভালোবাসে তারা তো আমাকে ভালোই বাসে। তারা যখন সঠিকটা জানবে, বিবেচনা করবে।’

সর্বশেষ নিজের অবস্থান ব্যাখ্যা করে শাকিব খান বলেন, ‘এটা একটা গেম, চক্রান্ত। আজ সকালে প্রথম আলোর নিউজ দেখে আমার সব যে দেখে তাঁকে ফোন দিয়ে অপু বলেছে যে রংবাজ ছবিতে তাঁকে নিতে হবে। নইলে সে প্রেস কনফারেন্স করবে। সারাজীবন তো সব নায়িকা বাদ দিয়ে তাঁকে নিলাম। এই শারীরিক অবস্থায় সে কেমনে আশা করে সিনেমার নায়িকা হওয়ার? এই অবস্থায় দর্শক ওকে নায়িকা হিসেবে নেবে? আমি এ-ও বলেছি, ফিগার ঠিক করে নাও। আমি তোমাকে ব্রেক দিচ্ছি।’

ছেলের বিষয়ে এই চিত্রনায়ক বলেন, ‘আমি তো আব্রাহামের সুখের জন্য টাকা দিয়েই যাচ্ছি। চাইলে ৫ লাখ, ১০ লাখ টাকা দিয়ে দিয়েছি। আব্রাহামের জন্য দিয়েছি। সারাজীবনই দিয়ে যাব। তাকে আমার সন্তান মেনেই যাব।’ তবে অপুর সঙ্গে তাঁর ভবিষ্যতের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কোনো দিনই ফিরে তাকাতে চাই না। কোনো দিনই না।’

এর আগে একটি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলকে অপু বলেন, চিত্রনায়ক শাকিবের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক বিয়ে পর্যন্ত গড়িয়েছে। তাঁদের একটি ছেলেও রয়েছে। তিনি বলেন, ২০০৮ সালে ১৮ এপ্রিল তাঁদের বিয়ে হয়। শাকিবের ঢাকার বাসায় এই বিয়ে হয়। পরিবারের কাছের লোকজন সেই বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন। বিয়ের সময় তাঁর নাম হয় অপু ইসলাম খান। শাকিবের ইচ্ছাতেই এত দিন বিয়ের বিষয়টি গোপন রাখা হয়েছে।

হঠাৎ উধাও হয়ে যাওয়ার ১০ মাস পর ফেরেন অপু বিশ্বাস। তিনি বলেন, এই দীর্ঘ সময়টায় তিনি ভারত, সিঙ্গাপুর ও ব্যাংককে ছিলেন। কলকাতার একটি হাসপাতালে তাঁর ছেলের জন্ম হয়, ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর। ছেলের নাম আব্রাহাম খান জয়। তিনি এসব কথা বলতে গিয়ে বারবার কান্নায় ভেঙে পড়েন। বলেন, শাকিবের ভালো চিন্তা করে তিনি সব করেছেন। অনেক ছাড় দিয়েছেন। ধৈর্য ধরতে ধরতে শেষ সীমানায় পৌঁছে গেছেন তিনি। তাই এবার সব বলছেন।

শাকিব সম্মান করেননি, বরং বারবার ছোট করেছেন বলে অপু বিশ্বাস বলেন। তাঁর ভাষায়, ‘সম্মান চেয়েছি। পাইনি। বারবার ছোট হয়েছি।’ তিনি বলেন, অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার পর শাকিব তাঁকে বলেছেন নিজেকে লুকিয়ে রাখতে। তাই তিনি তেমনটা করেছেন। সন্তান হওয়ার সময় শাকিব তাঁর পাশে ছিলেন না। তবে ঢাকায় আসার পর সন্তানকে দেখতে যান। সন্তানের সব খরচও দেন।

অপুর এসব বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চেয়ে প্রথম আলোর পক্ষ থেকে শাকিবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি নানা বিষয়ে কথা বলেন।

Comments

comments

SHARE