চরভদ্রাসনে কোর্ট নিষেধাজ্ঞা অমান্য.বসতবাড়ী নির্মান

0
71

ফরিদপুরের চরভদ্রাসন উপজেলা সদর ইউনিয়নের টিলারচর গ্রামে অসহায় দিন মজুর মৃত বদরদ্দিন মোল্যার পুত্র ইমান মোল্যার বসতভিটের প্রায় দুই শতাংশ জমি কোর্ট নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে প্রভাবশালী প্রতিবেশী দখলদার মৃত ওয়াছেল উদ্দিন শেখের ছেলে আলাউদ্দিন শেখ দখল করে বসতঘর নির্মান করে চলেছেন বলে অভিযোগ। এ ব্যাপারে দিন মজুর ইমান মোল্যা কোর্ট নিষেধাজ্ঞা নোটিশ নিয়ে চরভদ্রাসন থানায় শরনাপন্ন হলে পুলিশ ক’য়েক দফায় অভিযান করেও আলাউদ্দিন শেখের দখলদারিত্ব বন্ধ করতে পারে নাই বলে জানা গেছে। ফরিদপুর জজ কোর্ট নিষেধাজ্ঞা নং-৩২২/১৬।

রবিবার চরভদ্রাসন থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাম প্রসাদ ভক্ত জানান, “ দিন মজুরের বসতভিটে দখলদারিত্বর খবর পেয়ে পুলিশ একাধিকবার অভিযান করেছেন। পুলিশ গমনের খবর পেলেই দখলদাররা পালিয়ে থাকে, পুলিশ চলে এলে আবার ঘরনির্মান কাজ শুরু করে। তিনি আরও জানান, শুধু তাই নয়, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা (তহশিলদার) কয়েকবার দিন মজুরের জমি পরিমাপ করে সীমানা নির্ধারন করে দিয়েছেন, কিন্ত দখলদার আলাউদ্দিন শেখ কোনো সিদ্ধান্তই মানছে না”।

ক্ষতিগ্রস্থ দিন মজুর জানায়, প্রায় বিশ বছর আগে দখলদার আলাউদ্দিন শেখের বাড়ীর সীমানা ঘেষে মোট সোয়া বিশ শতাংশ জমি কিনে সে ভোগ ও দখলে ছিল। ১১ নং চরভদ্রাসন মৌজার হাল ২৫ নং খতিয়ানের ২২৫ নং দাগ থেকে উক্ত দিন মজুর সোয়া বিশ শতাংশ জমি কিনে দখলে ছিলেন। মাত্র ছয় মাস আগে দিন মজুরের ক্রয়কৃত ভিটে জমির মধ্যে থেকে প্রায় দুই শতাংশ জমি প্রতিবেশী আলাউদ্দিন শেখ জবর দখল করে নেওয়ার পর বসতঘর নির্মান করতে থাকে। ফলে দিন মজুর কোনো উপায় না পেয়ে কোর্টের শরনাপন্ন হলে বিজ্ঞ আদালত উক্ত ভিটে জমিতে নিষেধাজ্ঞা জারী করেন। কিন্ত দখলদার কোর্ট নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বসতঘর নির্মানের কাজ অব্যাহত রাখেন। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আজাদ খান, ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মোঃ আক্কাস আলী উপস্থিত থেকে কয়েক দফায় সালিশ বৈঠক করে দিন মজুরের জমির সীমানা নির্ধারন করে দেন। কিন্ত দখলদার কোনো কিছু না মেনে পেশি শক্তির জোরে স্থাপনা নির্মান কাজ অব্যাহত রেেখছে বলে অভিযোগ।

রবিবার দখলদার আলাউদ্দিন শেখকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞস করলে সে জানায়, ইমান মোল্যা সোয়া বিশ শতাংশ জমি কিনে নিয়েছে সত্য, তার ক্রয়কৃত জমি ভিটেবাড়ী সীমানায় ফসলী মাঠের মধ্যে থেকে দখল বুঝে দিয়ে ভিটেবাড়ীর জমি ছেড়ে দিলে কোনো বিরোধ থাকবে না”।

Comments

comments

SHARE